১৯ জুলাই ২০২৪, শুক্রবার, ০১:৩৫:৪৩ পূর্বাহ্ন
ডেঙ্গুতে ১৬ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ২৫৬৪
  • আপডেট করা হয়েছে : ০৪-১০-২০২৩
ডেঙ্গুতে ১৬ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ২৫৬৪

গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে আরও ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে সারা দেশে আরও দুই হাজার ৫৬৪ জন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।

বুধবার (৪ অক্টোবর) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোলরুম থেকে পাঠানো ডেঙ্গুবিষয়ক এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে দুই হাজার ৫৬৪ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকাতে ৭২০ জন এবং সারা দেশে (ঢাকা সিটি ব্যতীত) এক হাজার ৮৪৪ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন।


গত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে মোট দুই হাজার ৪৬২ ডেঙ্গুরোগী হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকায় বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে ৭০৮ জন এবং সারা দেশের (ঢাকায় ব্যতীত) বিভিন্ন হাসপাতালে থেকে এক হাজার ৭৫৪ জন ছাড়পত্র পেয়েছেন।


বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এরমধ্যে সাত জন ঢাকাতে এবং নয় জন সারা দেশে (ঢাকা সিটি ব্যতীত) মারা যান।


এ বছর ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মোট এক হাজার ৪৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকাতে ৬৬৯ জন এবং সারা দেশে (ঢাকা সিটি ব্যতীত) ৩৭৭ জন মারা যান।


চলতি বছরের ৪ অক্টোবর পর্যন্ত মোট ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছেন দুই লাখ ১৪ হাজার ২৪৭ জন। এর মধ্যে ঢাকাতে ৮৫ হাজার ৮৬০ জন ও সারা দেশে (ঢাকা সিটি ব্যতীত) এক লাখ ২৮ হাজার ৩৮৭ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছেন।


চলতি বছরে এ পর্যন্ত মোট দুই লাখ তিন হাজার ৯১৭ জন ডেঙ্গুরোগী হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পেয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতাল থেকে ৮২ হাজার ২৪৬ জন এবং সারা দেশের (ঢাকা সিটি ব্যতীত) বিভিন্ন হাসপাতাল এক লাখ ২১ হাজার ৬৭১ জন ছাড়পত্র পেয়েছেন।


বর্তমানে সারা দেশে মোট নয় হাজার ২৮৪ ডেঙ্গুরোগী হাসপাতালে ভর্তি আছেন। ঢাকাতে দুই হাজার ৯৪৫ জন এবং সারা দেশে (ঢাকা সিটি ব্যতীত) ছয় হাজার ৩৩৯ রোগী হাসপাতালে ভর্তি আছেন।


এতে আরও বলা হয়, চলতি বছরে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র পাওয়ার হার শতকরা ৯৫ শতাংশ। হাসপাতালে ভর্তি থাকার হার চার শতাংশ এবং মৃত্যুর হার শূন্য দশমিক পাঁচ শতাংশ।


গত বছরের ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা সর্বমোট ৬২ হাজার ৩৮২ জন এবং ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে মোট ২৮১ জন মারা যান।


শেয়ার করুন