২৪ জুন ২০২৪, সোমবার, ০৭:০৯:০৪ পূর্বাহ্ন
নতুন কী আছে আইফোন ১৫ প্রো ও প্রো ম্যাক্সে
  • আপডেট করা হয়েছে : ১৯-০৯-২০২৩
নতুন কী আছে আইফোন ১৫ প্রো ও প্রো ম্যাক্সে

টেক দুনিয়ার জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে বাজারে আসছে অ্যাপলের আইফোন ১৫। প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে ইতিমধ্যে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে ২২ সেপ্টেম্বর ৪০টি দেশ ও অঞ্চলে পাওয়া যাবে আইফোন ১৫ সিরিজের মোবাইল ফোন। তবে এর প্রি-অর্ডার শুরু হয়েছে ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে। এতে ক্যামেরাসহ বেশ কিছু ফিচারে এসেছে পরিবর্তন। আইফোন ১৫ ছাড়াও নতুন সিরিজে থাকছে ১৫ প্লাস, ১৫ প্রো ও ১৫ প্রো ম্যাক্স।


ডিসপ্লে ও ডিজাইন

বরাবরের মতো এবারও আইফোন ১৫ প্রো ও প্রো ম্যাক্সে আছে বড় ওলেড ডিসপ্লে। ফোনের ওপরের দিকে ডায়নামিক আইল্যান্ড নামে একটি বার যুক্ত করা হয়েছে। বারটিতে সামনের ক্যামেরা, সেন্সর, অ্যাপ ডেটা ও বিভিন্ন টাস্কের তথ্য পাওয়া যাবে। আইফোন ১৫ প্রোতে থাকছে ৬.১ ইঞ্চির ডিসপ্লে, অন্যদিকে ১৫ প্রো ম্যাক্সে ডিসপ্লে থাকছে ৬.৭ ইঞ্চি। আকারে পরিবর্তন না এলেও, ফোনের পাশগুলো আরও পাতলা হয়েছে। নতুন ফোনে মসৃণ স্টিলের পরিবর্তে টাইটেনিয়াম ব্যবহার করা হয়েছে। মজবুত ও স্থায়িত্বের সঙ্গে পাতলা হওয়ায় টাইটেনিয়াম আইফোন ব্যবহারে নিয়ে আসবে নতুনত্ব। মোবাইল ফোনগুলো 

যাতে সহজে মেরামত করা যায়, সেদিকে এবার জোর দেওয়া হয়েছে।


এ১৭ প্রো চিপ

গত বছরের এ১৬ বায়োনিক চিপের পরিবর্তে এবারের ফোনগুলো এ১৭ চিপ দিয়ে তৈরি। আকৃতিতে মাত্র ১৩ ন্যানোমিটার; ১৯ কোটি ট্রানজিস্টর, ৬-কোর সিপিইউ, ১৬-কোর নিউরাল ইঞ্জিন এবং ৬-কোরের উন্নত জিপিইউর সমন্বয়ে গঠিত চিপটি।


ক্যামেরা

বরাবরের মতো তিনটি ক্যামেরাই থাকছে আইফোন ১৫ প্রো ও ১৫ প্রো ম্যাক্সে। তবে ১৫ প্রো ম্যাক্সে অ্যাপল চিরাচরিত ‘টেলিফটো’ ক্যামেরার পরিবর্তে পেরিস্কোপ ক্যামেরা ব্যবহার করেছে। এ ছাড়া উন্নত স্ট্যাবিলাইজার ছবি ও ভিডিও ধারণ আরও মসৃণ করে তুলবে। ১৪ প্রো ও ১৪ প্রো ম্যাক্সের মতোই এবারের প্রো সংস্করণের ক্যামেরা ৪৮ মেগাপিক্সেল। নতুন ফোনে তুলনামূলক বড় সেন্সর যুক্ত করা হয়েছে। আইফোন ১৫ সিরিজের সব ফোনে পোর্ট্রেট মুডের ছবি হবে আরও রঙিন। পোর্ট্রেট মুড ক্লিক না করলেও আইওএস স্বয়ংক্রিয়ভাবে বিশদসহ ছবি তুলে নিতে পারবে। নতুন ফোনে থ্রিডি ভিডিও ধারণ করে ভিশন প্রো ভিআর সেটের মাধ্যমে দেখা যাবে। প্রথমবারের মতো আইফোনে থাকছে ‘একাডেমি কালার ইনকোডিং সিস্টেম’।


অ্যাকশন বাটন

দীর্ঘদিন ধরেই গুঞ্জন চলছিল, নতুন আইফোনে ক্ল্যাসিক মিউট সুইচের পরিবর্তে অ্যাকশন বাটন যুক্ত করা হবে। অ্যাকশন বাটনের অনেক সুবিধা আছে। যেমন এখনো ফোন মিউট করতে বাটনটি ক্লিক করা যাবে। এর বাইরে ভয়েস মেমো রেকর্ড, ক্যামেরা খোলা এবং শর্টকাটের মতো জিনিসগুলোর কাজ করা যাবে এই বাটন দিয়ে।


ইউএসবি-সি

এ বছর আইফোনের চার্জার নিয়ে বেশ বিতর্ক হয়েছে। টেকসই ও পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তি গড়ে তুলতে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) এবার আইফোনকে ইউএসবি-সি চার্জার ব্যবহারের নির্দেশ দিয়েছে। ইচ্ছার বিরুদ্ধে প্রতিষ্ঠানটি নতুন ফোনে ইউএসবি-সি টাইপের চার্জার ব্যবহার করতে বাধ্য হয়েছে। এর আগে আইফোন ২০১২ সালে এ ধরনের হালকা চার্জার ব্যবহার করে। আইফোন ১৫তে ইউএসবি-সি চার্জার থাকলেও গতি বাড়াতে প্রো সংস্করণে ইউএসবি-৩-এর গতিসীমা ১০ জিবিপিএস করা হয়েছে।


ওয়াই-ফাই, ইন্টারনেট ও স্যাটেলাইট-সেবা

প্রো সংস্করণে ওয়াই-ফাই-৬-এর পরিবর্তে থাকছে আরও উন্নত ওয়াই-ফাই-৬ই। নতুন প্রযুক্তি উচ্চ ব্যান্ডউইডথ ও দ্রুতগতির নিশ্চয়তা দেবে। পরবর্তী প্রজন্মের ওয়াইডব্যান্ড চিপ ফাইন্ড মাই অ্যাপের মাধ্যমে মোবাইল ফোন এবং বন্ধু খোঁজা সহজ করে দেবে। রাস্তায় চলার সহযোগী হিসেবে অ্যাপল ইমারজেন্সি এসওএস তৈরি করছে। আইফোন ১৫ সিরিজের যেকোনো ফোন কিনলে এর সঙ্গে দুই বছরের ফ্রি স্যাটেলাইট সেবাও পাওয়া যাবে।


শেয়ার করুন