২৪ জুন ২০২৪, সোমবার, ০৫:১৬:৪৬ পূর্বাহ্ন
আগস্টে বিজিবির অভিযানে ২১৫ কোটি টাকার পণ্যসামগ্রী জব্দ
  • আপডেট করা হয়েছে : ০৫-০৯-২০২৩
আগস্টে বিজিবির অভিযানে ২১৫ কোটি টাকার পণ্যসামগ্রী জব্দ

তিনি জানান, জব্দকৃত চোরাচালান দ্রব্যের মধ্যে রয়েছে ৩৩ কেজি ৩৪ গ্রাম স্বর্ণ, ৩৫ কেজি ৭৫৮ গ্রাম রুপা, ২ লাখ ৮৬ হাজার ৮৯২টি কসমেটিক্স সামগ্রী। ১৮ হাজার ৩২১টি ইমিটেশন গহনা, ১৯ হাজার ৮৫৭টি শাড়ি, সাত হাজার ৩২৩টি থ্রিপিস, শার্টপিস, চাদর ও কম্বল। এক হাজার ৬২৮ ঘনফুট কাঁঠ, ৯ হাজার ৯৩২ কেজি চা পাতা, ৫১ হাজার ৮৯০ কেজি কয়লা, দুটি কষ্টি পাথরের মূর্তি, চারটি ট্রাক/কাভার্ডভ্যান, পাঁচটি পিকআপ, দুটি প্রাইভেটকার, আটটি চাঁন্দের গাড়ি, ১৯টি সিএনজি/ইজিবাইক এবং ৬৪টি মোটরসাইকেল। উদ্ধারকৃত অস্ত্রের মধ্যে রয়েছে পাঁচটি পিস্তল, চারটি ম্যাগজিন ও ১৮ রাউন্ড গুলি। জব্দকৃত মাদক ও নেশাজাতীয় দ্রব্যের মধ্যে রয়েছে ২১ লাখ ৮৫ হাজার ৪৭৫ পিস ইয়াবা, আট কেজি ৪২০ গ্রাম ক্রিস্টাল মেথ আইস, ২৯ কেজি ৫৪৬ গ্রাম হেরোইন, ১০ হাজার ৪২৮ বোতল ফেনসিডিল, ২৪ হাজার ৭১৭ বোতল বিদেশি মদ, ৯৫৮ লিটার বাংলা মদ, চার হাজার ৬৪৪ ক্যান বিয়ার, এক হাজার ২১৫ কেজি গাঁজা, চার লাখ ৪৫ হাজার ২৫ প্যাকেট বিড়ি ও সিগারেট, ৬৫ হাজার ৩৪৭টি নেশাজাতীয় ইনজেকশন, ৭ হাজার ৫০৫টি ইস্কাফ সিরাপ, দুই কেজি ৫০০ গ্রাম কোকেন, দুই হাজার ৭৪২ বোতল এমকেডিল/কফিডিল, ২৬ হাজার ৫০২টি এ্যানেগ্রা/সেনেগ্রা ট্যাবলেট, ১৩ লাখ ৩১ হাজার ৫৫৬ পিস বিভিন্ন প্রকার ওষুধ এবং ২১ হাজার ১৮৪টি অন্যান্য ট্যাবলেট।  


তিনি আরও জানান, সীমান্তে বিজিবির অভিযানে ইয়াবাসহ বিভিন্ন প্রকার মাদক পাচার ও অন্যান্য চোরাচালানে জড়িত থাকার অভিযোগে ২৭৩ জন চোরাচালানিকে এবং অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রমের দায়ে ২৮ জন বাংলাদেশি নাগরিক, চারজন ভারতীয় নাগরিক এবং ১২৪ জন মিয়ানমারের নাগরিককে আটকের পর তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।


শেয়ার করুন