১৮ জুন ২০২৪, মঙ্গলবার, ০২:০০:১০ অপরাহ্ন
আগামী জাতীয় নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু হবে
  • আপডেট করা হয়েছে : ২৫-০৫-২০২৩
আগামী জাতীয় নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু হবে

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘আমাদের সরকারের অধীনে অবশ্যই (আগামী জাতীয় সংসদ) নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু হবে।’ কাতার ইকোনমিক ফোরামে (কিউইএফ) ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে কথোপকথন’ অধিবেশনে বুধবার তিনি এ কথা বলেন। র‌্যাফেলস হোটেলে জনাকীর্ণ হলরুমে এ অধিবেশন পরিচালনা করেন কিউইএফ’র হোস্ট এবং এডিটর হাসলিন্দা আমিন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমি এখানে এসেছি আমাদের জনগণের ভোটাধিকার নিশ্চিত করতে। জনগণই ঠিক করবে কে দেশ চালাবে। এটা জনগণের ক্ষমতা। তাই আমি জনগণের ক্ষমতা নিশ্চিত করতে চাই। আমি এখানে ক্ষমতা দখল না করার জন্য এসেছি, বরং আমি জনগণকে তাদের অধিকার দিতে চাই, যাতে তারা তাদের সরকার বেছে নিতে পারে।’

কিছু দলের নির্বাচনে অংশ নিতে অনিচ্ছার কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তারা কীভাবে অংশগ্রহণ করতে পারে-কারণ তাদের সময় দেশ অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। আমাদের জনগণ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল এবং সে সময় (বিএনপির শাসনামলে) সন্ত্রাস, দুর্নীতি, স্বজনপ্রীতি, শোষণ ছিল সর্বত্র। তারা কখনোই মানুষকে গোনায় ধরত না। আমাদের জনগণের জন্য একদিনে একবেলা খাবার পাওয়া খুবই কঠিন ছিল। এটাই ছিল তাদের অবস্থা। 

আওয়ামী লীগের সভাপতি বলেন, আমাদের দল যখন আবার ক্ষমতায় আসে, জনগণের জন্য সবকিছু নিশ্চিত করেছে। তাই এখন নির্বাচন জনগণের অধিকার। এখন মানুষ বুঝতে পারে।

তারা যদি আমাদের ভোট দেয়, আমি এখানে থাকব।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের কথা চিন্তা করুন, মি. ট্রাম্প এখনো ফলাফল মেনে নেননি। তারা এখন কী বলতে পারেন? তিনি বলেন, যারাই (পর্যবেক্ষক) পাঠাতে চায়, ইতোমধ্যে সবাইকে বলেছি-চাইলে তারা পর্যবেক্ষক পাঠাতে পারে। সুতরাং আমি আপনাকে বলতে পারি যে, আমি এখানে আমার জনগণের গণতান্ত্রিক অধিকার, ভোটের অধিকার নিশ্চিত করতে এসেছি এবং এটি আমাদের সংগ্রাম। 

প্রধানমন্ত্রী বিএনপির নাম উল্লেখ না করে হাসলিন্দা আমিনকে তার প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘দলটি একজন সামরিক শাসক দ্বারা গঠিত হয়েছে। ওই দল বা যুদ্ধাপরাধী দল বা আমাদের বাবা-মায়ের খুনিরা হয়তো স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করবে না। কিন্তু অন্যরা, আরও অনেক দল আছে এবং তারা নির্বাচনে অংশ নেবে। সুতরাং আমি বুঝতে পারছি না কেন বারবার এ প্রশ্ন করা হচ্ছে?’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘১৯৭৫ সালে যখন বাবাকে হত্যা করা হয় তখন সামরিক স্বৈরশাসক সব ক্ষমতা কেড়ে নিয়েছিল। তখন তারা সব নির্বাচন প্রক্রিয়াকে ঝুঁকিপূর্ণ করে ফেলে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯৮১ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আমার অনুপস্থিতিতে আমাকে দলের সভাপতি নির্বাচিত করে এবং এরপর থেকে আমরা গণতন্ত্রের জন্য, জনগণের ভোটাধিকারের জন্য সংগ্রাম শুরু করি।’

আইএমএফ’র ঋণসংক্রান্ত প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশের অর্থনীতি সুন্দরভাবেই এগিয়ে যাচ্ছে। এটা এমন নয় যে-আমাদের অর্থনীতি সংকটে আছে। এই ঋণ শুধু আমাদের অর্থনীতিকে সুরক্ষিত করবে।’ শেখ হাসিনা বলেন, আইএমএফ শুধু সেই দেশকে ঋণ দেয়, যারা তাদের ঋণ পরিশোধ করতে পারে। তারা (আইএমএফ) প্রথমে মনে করেছিল যে, ঋণ ফেরত দিতে পারবে কিনা। কিন্তু দেখেছে, বাংলাদেশ এমন একটি অবস্থানে রয়েছে যে ঋণ পরিশোধ করতে পারবে। জ্বালানি ও বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব শুধু বাংলাদেশ নয়, সব দেশেই পড়ছে। আমরা আমাদের অগ্রগতি অব্যাহত রাখতে নবায়নযোগ্য শক্তি, সৌরবিদ্যুৎ ও অন্যান্য বিকল্প খুঁজছি।’

হাসলিন্দা আমিন বলেন, ভারতের মতো দেশ রাশিয়ার কাছে অনেক কম দামে তেল চাইছে। তিনি প্রশ্ন করেন, রাশিয়া তাদের জন্য সম্ভাব্য সরবরাহকারী কিনা? জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, ‘রাশিয়া থেকে আমরা কখনোই তেল কিনিনি। যেখানেই তেল পাওয়া যাবে, নিশ্চিতভাবেই আমরা তা নেব, কেন নয়?’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের পররাষ্ট্রনীতি খুবই পরিষ্কার। আমি দর্শকদের বলতে চাই যে, বাংলাদেশ অনুসরণ করে-সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারও সঙ্গে বৈরিতা নয়।’ তিনি বলেন, ‘আরেকটি বিষয় আমার উল্লেখ করা উচিত যে, দেশে দেশে বিরোধ থাকতে পারে, কিন্তু আমরা কখনোই এতে হস্তক্ষেপ করিনি। আমরা কখনোই পক্ষপাতমূলক ভূমিকা পালন করব না।’ শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘আমাদের জনগণের চাহিদা পূরণ করতে হবে। আমাদের দেশের উন্নয়ন করতে হবে-যাতে দেশের মানুষ উন্নত জীবন পায়।’

কাতারের আমিরের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুধবার আমিরি দেওয়ানে কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল সানির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। বৈঠকে জ্বালানি, ব্যবসা ও বিনিয়োগ এবং বাংলাদেশি জনশক্তি এবং মুসলিম উম্মাহ, বাংলাদেশের উন্নয়ন বিষয়ে দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতার বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। এক প্রেস ব্রিফিংয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন বলেন, এই বৈঠকটি অত্যন্ত উষ্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয়।

জ্বালানি সম্পর্কে কাতারের আমির বলেন, কাতার থেকে বাংলাদেশে আরও বেশি পরিমাণে জ্বালানি সরবরাহের বিষয়ে নতুন চুক্তি স্বাক্ষরের আলোচনা কয়েক মাস ধরে বিবেচনাধীন রয়েছে। আমি আমির হিসাবে, আপনাকে প্রতিশ্রুতি দিয়েছি যে, বন্ধু দেশ হওয়ায় আমি আপনাকে সব ধরণের সুযোগ-সুবিধা দেব।

শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রশংসা করে কাতারের আমির বলেন, তারা এক সময় জানত বাংলাদেশ একটি দুর্যোগ ও দারিদ্র্যপীড়িত দেশ। কিন্তু শেখ হাসিনা ক্ষমতায় এসে বাংলাদেশের খাদ্য ঘাটতি দূর করেছেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা কিছুটা এগিয়েছি। কিন্তু আমার কাজ শেষ হয়নি। আমি আরও কাজ করতে চাই। কিন্তু আমি একা তা করতে পারব না। আমি আপনার সাহায্য চাই। আমার আরও বিনিয়োগ দরকার। আমি আমার দেশকে বিনিয়োগের জন্য খুলে দিয়েছি। আপনি পারস্পরিক সুবিধার জন্য বিনিয়োগের ক্ষেত্রে এগিয়ে আসতে পারেন। শেখ হাসিনা কাতারের আমিরকে এ বছরের মধ্যে সম্ভব হলে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান। জবাবে শেখ তামিম বিন হামাদ আল সানি বলেন, তিনি অবশ্যই বাংলাদেশ সফর করবেন এবং এটি এই বছরের মধ্যেই হবে।

কাতারে বাংলাদেশি শ্রমিকদের চাকরি হারানোর আশঙ্কা সম্পর্কে আমির বলেন, এখন ৩ লাখ ৭০ হাজার বাংলাদেশি এখানে আছেন এবং তারা কাতারের জন্য আশীর্বাদস্বরূপ। কাতার নতুন প্রকল্প নিতে যাচ্ছে এবং বাংলাদেশিরা এখানেই থাকবেন এবং তারা পরিশ্রমী ও আন্তরিকভাবে কাজ করছেন। তিনি বলেন, আমরা বাংলাদেশিদের নিয়ে খুবই খুশি।

শেয়ার করুন