১৯ জুলাই ২০২৪, শুক্রবার, ০২:২৭:৪০ পূর্বাহ্ন
বাংলাদেশ ব্যাংক নিজেই নিয়ম ভাঙছে!
  • আপডেট করা হয়েছে : ২৯-০৫-২০২৪
বাংলাদেশ ব্যাংক নিজেই নিয়ম ভাঙছে!

কোনো ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের (এমডি) অবসরে যাওয়ার ৫ বছর পার না হওয়া পর্যন্ত নিজ ব্যাংকের পরামর্শক ও উপদেষ্টা পদে নিয়োগে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। ব্যাংক খাতে সুশাসন ফেরাতে ও ব্যবস্থাপনায় নিরপেক্ষতা নিশ্চিত করতেই বাংলাদেশ ব্যাংক এমন বিধান করে রেখেছে। তবে এ বিধান লঙ্ঘন করে বেসরকারি খাতের আইএফআইসি ব্যাংকের সদ্য অবসরে যাওয়া এমডিকে একই ব্যাংকের উপদেষ্টা পদে নিয়োগ অনুমোদন করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। ১১ মে গভর্নর আব্দুর রউফ তালুকদার ‘বিশেষ বিবেচনায়’ এই নিয়োগ অনুমোদন দেন।


আইএফআইসি ব্যাংক সূত্র জানায়, আইএফআইসি ব্যাংকের এমডি শাহ আলম সারওয়ারের মেয়াদ শেষ হয় ১২ মে। এরপর ২৬ মে থেকে তিনি ব্যাংকটির ‘কৌশলগত উপদেষ্টা’ হিসাবে যোগদান করেন। এ তথ্য তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ারও করেন। তার মেয়াদ শেষ হওয়ার পর ব্যাংকটিতে এখনো পূর্ণকালীন এমডি নিয়োগ হয়নি।


বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্র জানায়, ২ বছরের জন্য তাকে ‘কৌশলগত উপদেষ্টা’ হিসাবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এজন্য প্রতি মাসে বেতন অনুমোদন করা হয়েছে প্রায় ১৫ লাখ টাকা।


বাংলাদেশ ব্যাংক ২০২১ সালে জারি করা এক প্রজ্ঞাপনে জানায়, কোনো ব্যাংকের এমডি বা পরের দুই পদ পর্যন্ত কর্মকর্তারা অবসরের ৫ বছর পার না হওয়া পর্যন্ত একই ব্যাংকের উপদেষ্টা বা পরামর্শক হিসাবে নিয়োগ পাবেন না। এর আগ পর্যন্ত এক বছর পরেই একই ব্যাংকে উপদেষ্টা বা পর্যবেক্ষক হওয়ার সুযোগ ছিল।


২০২১ সালে তা পরিবর্তন করে ৫ বছর করার কারণ সম্পর্কে বাংলাদেশ ব্যাংক জানায়, ব্যাংকের পরিচালনা ও ব্যবস্থাপনায় নিরপেক্ষতা, পেশাগত মান ও সুশাসন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ব্যাংক কোম্পানি আইনে ব্যাংকের সঙ্গে অতীত, বর্তমান বা ভবিষ্যৎ স্বার্থসংশ্লিষ্ট ব্যক্তি স্বতন্ত্র পরিচালক নিয়োগের যোগ্য হবেন না মর্মে বাধ্যবাধকতা আরোপ করা হয়েছে। এজন্য ৫ বছর পার না হওয়া পর্যন্ত কেউ নিজ ব্যাংকের উপদেষ্টা বা পর্যবেক্ষক হতে পারবেন না। কেউ কখনো একই ব্যাংকের পরিচালক হিসাবে নিয়োগ পাবেন না।


বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্র জানায়, জানুয়ারিতে ন্যাশনাল ব্যাংক তাদের অবসরে যাওয়া এমডি মেহমুদ হোসেনকে একই ব্যাংকের উপদেষ্টা পদে নিয়োগের জন্য আবেদন জমা দেয়। এরপর ৩১ জানুয়ারি বাংলাদেশ ব্যাংক চিঠি দিয়ে ব্যাংকটিকে ২০২১ সালের প্রজ্ঞাপন অনুসরণ করতে নির্দেশনা দেয়। ফলে ৫ বছরের আগে ব্যাংকটিতে মেহমুদ হোসেনের নিয়োগ পাওয়া বন্ধ হয়ে যায়। বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র মেজবাউল হক বলেন, ‘আইএফআইসি ব্যাংক নিজেদের সংস্কার করার উদ্যোগ নিয়েছে। এজন্য অবসরে যাওয়া এমডিকে উপদেষ্টা হিসাবে নিয়োগ দেওয়ার জন্য বিশেষ অনুমোদন চেয়েছিল। বাংলাদেশ ব্যাংকের ক্ষমতা আছে, নিয়মের বাইরে বিশেষ বিবেচনায় অনুমোদন দেওয়ার। এ ক্ষেত্রে বিশেষ বিবেচনায় এ নিয়োগ অনুমোদন করা হয়েছে।’


তাহলে অন্যদের ক্ষেত্রেও এ বিশেষ বিবেচনা প্রয়োগ হবে কিনা, জানতে চাইলে নিয়ন্ত্রক সংস্থাটির মুখপাত্র বলেন, ‘কেউ বিশেষ প্রয়োজনে কোনো অনুমোদন চাইলে বাংলাদেশ ব্যাংক বিবেচনা করবে। ন্যাশনাল ব্যাংকের আবেদন যুক্তিযুক্ত না হওয়ায় ওই ব্যাংকের এমডিকে উপদেষ্টা পদে নিয়োগ দেওয়া হয়নি।’


জানা যায়, শাহ আলম সারওয়ার ২০১২ সালের ডিসেম্বর থেকে ১২ মে পর্যন্ত আইএফআইসি ব্যাংকের এমডি ছিলেন। দেশে-বিদেশের বিভিন্ন ব্যাংকে কাজ করা শাহ আলম সারওয়ার ২০০৫ সালে আইপিডিসি ফাইন্যান্সের এমডি হিসাবে শীর্ষ পদে কাজ শুরু করেন। এরপর একে একে ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক, প্রিমিয়ার ব্যাংক ও ট্রাস্ট ব্যাংকের এমডি হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। পাশাপাশি তিনি ২০১১-২০ সাল পর্যন্ত সরকার মনোনীত প্রতিনিধি হিসাবে গ্রামীণ ব্যাংকের পরিচালক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন।


শেয়ার করুন