এবার রাজস্থানে নারীকে মারধরের পর নগ্ন করে ঘোরাল স্বামী-শ্বশুর


, আপডেট করা হয়েছে : 02-09-2023

এবার রাজস্থানে নারীকে মারধরের পর নগ্ন করে ঘোরাল স্বামী-শ্বশুর

ভারতের রাজস্থান রাজ্যে এক নারীকে মারধরের পর নগ্ন করে গ্রামে গ্রামে ঘুরিয়েছে তাঁর স্বামী ও শ্বশুর। রাজ্যটির প্রতাপগড় জেলায় গত বৃহস্পতিবার এই ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে স্থানীয় পুলিশ। এরই মধ্যে সেই ঘটনার একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদন থেকে এ তথ্য জানা গেছে। 


পুলিশ জানিয়েছে, ২১ বছর বয়সী ওই নারীকে তাঁর স্বামী ও শ্বশুর মিলে ব্যাপক মারধর করে। পরে তাঁকে নগ্ন করে গ্রামসুদ্ধ ঘোরায় তাঁরা। ভিডিও থেকে দেখা গেছে, এ সময় ওই নারী বারবার সাহায্যের চেয়ে চিৎকার করছিলেন।


 

পুলিশ আরও জানিয়েছে, ওই নারীর স্বামী ও শ্বশুরের অভিযোগ—তাঁর অন্য একজনের সঙ্গে পরকীয় সম্পর্ক ছিল। বিষয়টি জানার পর ওই নারীকে মারধর করে তাঁরা। এই ঘটনার পরপরই পর্যন্ত তিনজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এই ঘটনায় পুলিশের ৬টি বিশেষ দল গঠিত হয়েছে বলে জানিয়েছেন রাজস্থান পুলিশের ডিজিপি (মহাপরিচালক) উমেশ মিশ্রা। 


ডিজিপি (মহাপরিচালক) উমেশ মিশ্রা বলেন, ‘দুঃখের বিষয় হলো—সেই নারী বিবাহিতা হওয়ার পরও অন্য এক পুরুষের সঙ্গে বসবাস করছিল। পরে ওই নারীর শ্বশুর তাঁকে অপহরণ করে নিজের গ্রামে ফিরিয়ে নিয়ে যায় এবং মারধর করে। পরে তাঁকে গ্রামের মধ্য দিয়ে নগ্ন করে ঘোরানো হয়।’ তিনি জানান, গ্রামটিতে প্রতাপগড় জেলা পুলিশের সুপার অমিত কুমার মিশ্রা একটি অস্থায়ী ক্যাম্প বসিয়েছেন।


 

এই ঘটনার নিন্দা করেছেন রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গেহলট। ঘটনার দিন গভীর রাতে এক টুইটে তিনি বলেন, ‘প্রতাপগড় জেলায় পারিবারিক বিবাদের জেরে এক নারীকে শ্বশুরবাড়ির লোকেরা নগ্ন করে ঘুরিয়েছে—এমন একটি ভিডিও প্রকাশ পেয়েছে। পুলিশ মহাপরিচালককে এডিজি ক্রাইমকে ঘটনাস্থলে পাঠিয়ে এ বিষয়ে কঠোর ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সভ্য সমাজে এ ধরনের অপরাধীদের কোনো স্থান নেই। এই অপরাধীদের যত তাড়াতাড়ি সম্ভব কারাগারে পাঠানো হবে এবং দ্রুত বিচার আদালতে বিচার ও শাস্তি দেওয়া হবে।’ 


ধর্ষণের পর ক্যামেরার সামনে নগ্ন করে ঘোরানো হলো দুই নারীকেধর্ষণের পর ক্যামেরার সামনে নগ্ন করে ঘোরানো হলো দুই নারীকে

তবে এই ঘটনায় রাজ্যের কংগ্রেস সরকারকে দায়ী করেছে কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন দল বিজেপি। দলটির প্রধান জেপি নাড্ডা বলেছেন, ‘রাজস্থানে ক্ষমতাসীন দলের নেতারা অন্তর্দ্বন্দ্ব মেটাতে ব্যস্ত’। তিনি আরও বলেন, ‘রাজ্যে নারীদের নিরাপত্তার বিষয়টি বারবার উপেক্ষিত হয়েছে। তবে রাজস্থানের জনগণ এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে রাজ্য সরকারকে কড়া জবাব দেবে।’ 


এর আগে, ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য মণিপুরে দুই উপজাতি নারীকে ধর্ষণের পর ক্যামেরার সামনে ঘোরানো হয়। তবে ঘটনা সংঘটিত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে বিষয়টি জানা যায়নি। প্রায় ৭০ দিন পেরিয়ে যাওয়ার পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সেই ঘটনার ভিডিও ভাইরাল হলে ভারতজুড়ে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়।



  • সম্পাদক ও প্রকাশক: ইঞ্জিনিয়ার মো: রায়হানুল ইসলাম
  •  নিউজ এডিটর: মো: জহুরুল ইসলাম

  • উপদেষ্টাঃ মোঃ ইব্রাহীম হায়দার