essay writer
রাজশাহী | সোমবার | জানুয়ারী 22, 2018 | 9 মাঘ, 1425

বৃদ্ধ-মস্তিষ্কের ক্ষমতা বাড়ায় বন্ধুত্ব

বৃদ্ধ-মস্তিষ্কের ক্ষমতা বাড়ায় বন্ধুত্ব

তরুণ বয়সে আড্ডা, বন্ধুদের সঙ্গে সময় কাটিয়ে শুনতে হয় ‘উচ্ছন্নে গেছে’! তবে বুড়ো বয়সে সেটাই শাপে-বর হয়ে ফেরত আসবে। কারণ গবেষণা বলছে পুরানো বন্ধুত্ব টিকিয়ে রাখতে পারলে বৃদ্ধ বয়সেও মস্তিষ্ক থাকে সচল।গবেষণায় দেখা গেছে, শিক্ষাজীবনে যাদের সঙ্গে বাঁদরামী করেছেন কিংবা কর্মস্থলে যাদের সঙ্গে চুটিয়ে আড্ডা দিয়েছেন, জীবনের প্রান্তিক বছরগুলোতেও যদি তাদের সঙ্গে পুরানো সম্পর্কটা ধরে রাখতে পারলে, আপনার মস্তিষ্ক তুলনামূলক বেশি কর্মক্ষম থাকবে।

আমাদের দেশের গড় আয়ু প্রায় ৬০ বছর, তবে কপালগুনে কেউ আবার ৮০-৯০ বছরও পার করে দেন- এপারেই। তবে বেশিরভাগই ততদিনে বিভিন্ন রোগ পাশাপাশি ভুলে যাওয়ার ব্যথিতে ভুগতে থাকেন।

নতুন এই গবেষনা বলছে, বৃদ্ধ বয়সেও এক বা একাধিক সমবয়সি মানুষের সঙ্গে শক্তিশালী এবং গভীর সামাজিক সম্পর্ক বজায় থাকলে মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা বজায় থাকে কমপক্ষে ৫০ বা ৬০ বছর বয়সিদের মতো।

যুক্তরাষ্ট্রের নর্থওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটির সহযোগী অধ্যাপক এমিলি রোগালস্কি বলেন, “বয়স বাড়ার সঙ্গে তাল মিলিয়ে মস্তিষ্কের অবক্ষয়ের হার কমানোর পেছনে জোরদার সামাজিক সম্পর্ক বজায় রাখার অবদান রয়েছে। গবেষণাটি এই ধারণাকে সমর্থন করে।”

একই বিশ্ববিদ্যালয়ের ডক্টরেট ডিগ্রির শিক্ষার্থী আমান্ডা কুক বলেন, “বৃদ্ধ বয়সে মস্তিষ্কের কার্যক্ষমতা ধরে রাখার পেছনে দায়ি বিষয়গুলো বোঝার চেষ্টাকে আরও একধাপ এগিয়ে নিয়ে গেছে এই গবেষণা।”

আগের গবেষণাগুলোতে দেখা গেছে বৃদ্ধ বয়সে মানসিক সুস্বাস্থ্য ‘আলৎঝাইমার’স ডিমেনশা’ বা  স্মৃতিভ্রংশ রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা কমায়।

রোগালস্কি আরও বলেন, “বৃদ্ধ বয়সে ভালো বন্ধুত্ব বজায় থাকলেই আলৎঝাইমার’স হবে না, ব্যাপারটা এতটাও সহজ নয়। তবে বুড়ো বয়সে মস্তিষ্কের ক্ষমতা ধরে রাখতে করণীয়গুলোর তালিকা করা হলে ধূমপান ত্যাগ, স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস ইত্যাদির তুলনায় একাধিক গভীর বন্ধুত্ব বেশি গুরুত্বপূর্ণ।”

‘পিএলওএস ওয়ান’ জার্নালে প্রকাশিত এই গবেষণায় অংশগ্রহণকারীরা ৪২টি বিষয়ের উপর বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। এই পদ্ধতিকে বলা হয় ‘রিফ সাইকোলজিকাল ওয়েল-বিইং স্কেল’ যা মানুষের মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষায় বহুলভাবে ব্যবহৃত হয়।

এই পদ্ধতিতে মানসিক স্বাস্থ্য পরিমাপ করে ছয়টি ধাঁচে। সেগুলো হল: ব্যক্তিস্বাধীনতা, অন্যদের সঙ্গে সুসম্পর্ক, পরিবেশ সম্পর্কে জ্ঞান, ব্যক্তিগত উন্নয়ন, জীবনের লক্ষ্য এবং আত্মসমর্থন।

রোগালস্কি বলেন, “অন্যদের সঙ্গে সুসম্পর্কের ক্ষেত্রে বৃদ্ধদের গড় ফলাফল হয় ৪০, আর ‘কন্ট্রোল গ্রুপ’য়ের ফলাফল ছিল ৩৬। তথাৎটা হেলাফেলা করার নয়।

ছবি: রয়টার্স।

print

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

You may use these HTML tags and attributes: <a href="" title=""> <abbr title=""> <acronym title=""> <b> <blockquote cite=""> <cite> <code> <del datetime=""> <em> <i> <q cite=""> <strike> <strong>